বড়লেখায় অনুমতি ছাড়াই উপজেলা চত্ত্বরের গাছ কাটলেন ঠিকাদার

94

এস এম জালাল উদ্দিনঃ বড়লেখায় অনুমোদন ছাড়াই উপজেলা চত্ত্বরের সরকারী দেড় লক্ষাধিক টাকার গাছ কেটে ফেললেন মডেল মসজিদ নির্মাণকারী ঠিকাদার। এছাড়া অদক্ষ শ্রমিক দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানের গাছ কাটায় বিদ্যুৎ লাইনে বিস্ফোরণ ঘটে। তবে অল্পের জন্য বড় ধরণের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পান এলাকাবাসী।

জানা গেছে, উপজেলা মডেল মসজিদ নির্মাণ কাজের দায়িত্ব পায় ঢাকার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান “এশিয়া এন্টারপ্রাইজ’। মসজিদের নির্ধারিত স্থানে উপজেলা পরিষদের কাঠাল,  বেলজিয়াম, অর্জুনসহ বিভিন্ন প্রজাতির ২০-২৫টি পুরাতন গাছ রয়েছে। এসব গাছ কাটার প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হতেই ঠিকাদারের লোকজন উপজেলা প্রশাসনের কাউকে অবহিত না করেই বুধবার শ্রমিক লাগিয়ে গাছ কাটা শুরু করে। একাধিক গাছের আশপাশ দিয়ে বিভিন্ন সরকারী অফিস, আবাসিক ও বাণিজ্যিক বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে। বিদ্যুৎ লাইনে একটি গাছ পড়ে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। পরে প্রায় দেড়ঘন্টা পর বিদ্যুৎ আসে। স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল জলিল খোকন, লাল মিয়া, কামরুল ইসলাম, বকুল আহমদ প্রমূখ জানান, অদক্ষ লোক দিয়ে গাছ কাটায় বিদ্যুৎ লাইনে পড়ে গিয়ে বিস্ফোরণ ঘটে। এসময় বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো।

শুক্রবার সরেজমিনে উপজেলা চত্ত্বরে গিয়ে বিভিন্ন প্রজাতির অন্তত দেড় লক্ষাধিক টাকার কাটা গাছ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। সাইট ম্যানেজার মো. খোরশেদ জানান, ঠিকাদার দুলাল তাকে বলেছেন, জেলা প্রসাশককে ফোন দিলে গাছ কাটার অনুমতি দেন। ঠিকাদারের নির্দেশ পেয়ে তিনি গাছগুলো কেটে ফেলেন।

ইউএনও মো. শামীম আল ইমরান জানান, মডেল মসজিদ নির্মাণের নির্ধারিত স্থানের সরকারী গাছ কাটার প্রক্রিয়া চলছে। এখনও অনুমতি পাওয়া যায়নি। কিন্তু তার সাথে কোন ধরণের যোগাযোগ ছাড়াই ঠিকাদার গাছগুলো কেটে ফেলেছেন যা সম্পুর্ণ অবৈধ। জেলা প্রশাসক ঠিকাদারকে গাছ কাটার নির্দেশ দিয়েছেন বলেও তার জানা নেই।