কুলাউড়ায় মার্কেটে আগুন, প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

472

মৌলভীবাজার২৪ ডেস্ক:  মৌলভীবাজারের কুলাউড়া পৌর শহরের রেল কলোনীর একটি মার্কেটে আগুন লেগে প্রায় ৮টি দোকানের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে মার্কেটের আব্দুস সোবহান নিয়াজি এবং সাজু মিয়ার মালিকানাধীন দুইটি দোকানের প্রায় পুরোটাই পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে। আগুনে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানিয়েছে।

সোমাবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হঠাৎ আগুনের ধোঁয়া দেখে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন স্থানীয়রা। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারনে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিক ধারনা করছেন ফায়ার সার্ভিস।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার স্টেশনের অফিসার বেলায়েত হোসেনের নেতৃত্বে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ও স্থানীয় মুক্ত স্কাউটের সদস্যদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এবং উপস্থিত জনসাধারণের সহযোগীতায় এক ঘণ্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। তবে পৌর সাবেক কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতইয়ে মার্কেট নামে পরিচিত ওই মার্কেটের আব্দুস সোবহান নিয়াজি মালিকানাধীন নিয়াজি টি হাউজ ও সাজু মিয়ার মালিকানাধীন সাজু স্টোর প্রথম দুইটি দোকানের প্রায় সব কিছু পুড়ে ছাঁই হয়ে যায়। ওই মার্কেটে অবস্থিত কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আখই পরিচালিত একটি এনজিও পায়রা ঋণদান সমবায় সমিতি অফিস ও কম্পিউটার ও তার মোটরসাইকেল,  সাবেক কাউন্সিলরার মতইয়ের নিজস্ব অফিস, সাজু মিয়ার ভূসি মালের দোকান তাজুল ইসলামের ভূসিমালের দোকান, তাজ উদ্দিনের মালিকানাধীন একটি হারবাল মেডিসিনের দোকান, কাজী জসীম উদ্দিন পরিচালিত কাজি অফিসের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

কুলাউড়া মুক্ত স্কাউটের সাধারণ সম্পাদক শামছু উদ্দিন বাবু বলেন, ধোঁয়া দেখে আমরা দৌঁড়ে এসে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেই। পরে ফায়ার সার্ভিস ও আমাদের সকলের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে।

কুলাউড়া ফায়ারসার্ভিসে কর্মরত ফায়ার ম্যান মোহাম্মদ তপন ভুইয়া বলেন, আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে প্রায় ১ ঘণ্টা ১০ মিনিট লেগেছে। আগুনে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে সময়মতো ফায়ার সার্ভিস উপস্থিত হয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ করায় ওই মার্কেটের দোকানদারদের প্রায় ৬ লক্ষ টাকা পরিমানের মালামাল উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে