মৌলভীবাজার হাওড়ের সাথে সংযুক্ত খাল ও নদী ভরাট- নব্যতা সংকট চরমে-ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন স্থানীয়রা

206

আলী হোসেন রাজন: মৌলভীবাজারে হাওড়ের সাথে সংযুক্ত খাল-নদী পলি জমে ভরাট হয়ে হারিয়ে ফেলেছে নব্যতা। ফসল ও মাছ উৎপাদন আর জীব বৈচিত্র্য রক্ষায় বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন হাওড় পাড়ের হাজারো মানুষ। সম্প্রতি ভরাট হওয়া ১টি খাল ও ১টি নদী খনন শুরু হওয়ায় আনন্দিত স্থানীয়রা। তবে ভরাট হওয়া সবকটি খাল-নদী খননের দাবী তাদের।

মৌলভীবাজার কাউয়াদীঘি ও হাকালুকি হাওড়ের সাথে সংযুক্ত উল্লেখযোগ্য ৬০টির অধিক খাল ও নদী রয়েছে। উজান থেকে নেমে আসা পলি জমে এসব খাল ও নদী ভরাট হয়ে নব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে। বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে পানি নিস্কাশন। এছাড়া শুস্ক মৌসুমে খাল ও নদীগুলোতে নৌকা চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ে। শুধু তাই নয় বেশির ভাগ খাল ও নদী পানি শূণ্য হয়ে শুকিয়ে যায়। দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন হাওড়ের উপর নির্ভরশীল হাজারো কৃষক।

হাওড় পাড়ের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবীর ফলে এ অর্থবছরে কাউয়াদীঘি হাওড়ের সাথে সংযুক্ত আখালি খাল এবং হাকালুকি হাওড়ের সাথে সংযুক্ত ফানাই নদী খনন কাজ শুরু হয়েছে। নব্যতা ফিরে পাচ্ছে এই দুটি নদী ও খাল । হাওড়ের সাথে গ্রামের রাস্থা না থাকায় নৌকা দিয়ে ধান ,ঘাস , মাছ পরিবহনের সুযোগ আবার সৃষ্ঠি হচ্ছে। এছাড়া ফসল উৎপাদনে সেচ সুবিধাসহ উপকৃত হবেন হাওড় অঞ্চলের কৃষকরা। তবে হাওড়ে ভরাট হওয়া সবকটি নদী-খাল খননের দাবী তাদের।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রণেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী জানিয়েছেন আগাম বন্যা নিস্কাশনের আওতায় ১ কেটি ৭০ লাখ টাকা ব্যায়ে আখালি খাল খনন প্রায় শেষ পর্যায়ে। আর প্রধানমন্ত্রীর ডেল্টা প্লানের খাল-নদী খননের ১ম পর্যায় ফানাই নদী খনন কাজ চলছে। প্রায় ১১ কোটি টাকা ব্যায়ে ৪০ কি:মি: দৈর্ঘ্যরে ফানাই নদী এরই মধ্যে সাড়ে ৮ কি:মি: খনন শেষ হয়েছে। আগামী বছর এর খনন কাজ শেষ হবে।এছাড়া ভরাট হওয়া অন্য খাল ও নদী সরজমিন পরিদর্শন করে প্রতিবেদন তৈরীর কাজ চলছে। পর্যায়ক্রমে খনন করার আশ্বাস দিলেন নির্বাহী প্রকৌশলী ।

খনন প্রক্রিয়া চলমান থাকলে হাওড় অঞ্চলের সবকটি খাল ও নদী হারানো ঐতিহ্য ফিরে পাবে । পানি প্রবাহ ঠিক থাকবে। সেই সাথে উপকৃত হবেন স্থানীয়রা।