কাতার হামাদ হাসপাতালের মর্গে বড়লেখার আজিজুরের লাশ পড়ে আছে

286

মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার এক রেমিট্যান্স যোদ্ধার মৃত্যু লাশ পড়ে আছে কাতারের মর্গে।

গত কাতারে ৩ এপ্রিল অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতাল নেওয়ার পথে মারা যান আজিজুর রহমান (৪৮)। তার বাড়ি মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার সৎপুর গ্রামে।

চার কন্যা ও এক পুত্র সন্তানের জনক আজিজুর রহমান ২০১৪ সালে কাতার এসেছিলেন জীবিকার টানে। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে মেডিকেল সংক্রান্ত জটিলতায় তিনি কাজের অনুমতি পাননি। বিশাল টাকা খরচ করে প্রবাসে গিয়ে অবশেষে নিরুপায় হয়ে তিনি আর দেশে ফিরে যাননি অবৈধ অবস্থায় কাতারে থেকে যান।

জানা গেছে, গত ৩ এপ্রিল হঠাৎ করে এপেন্ডিসাইটিসের ব্যাথায় অসুস্থ হয়ে পড়েন আজিজুর। বৈধ ভিসা না থাকায় পাশে থাকা কেউ তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাননি। পরে খবর পেয়ে তার ভাই এসে হাসপাতালে নিয়ে গেলেও কর্তব্যরত চিকিৎসক আজিজুরকে মৃত ঘোষণা করেন।

বর্তমানে তার লাশ আলখোর হামাদ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

লাশ দেশে পাঠাতে অনেক টাকার প্রয়োজন, মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্ট,৬ হাজার রিয়াল জরিমানা, দেশে পাঠানোর বিমান টিকেটসহ রয়েছে নানাধরণের আইনি প্রক্রিয়া।

এ বিষয়ে জালালাবাদ এসোসিয়েশান কাতার-এর সভাপতি নজরুল ইসলাম এর সাথে মোবাইলে আলাপকালে তিনি জানান আমরা বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হয়েছি। আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি কিভাবে অতি দ্রুত লাশ দেশে পাঠানো যায়।

তিনি আজিজুরের লাশ দেশে পাঠানোর জন্য আর্থিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে সকল প্রবাসীদের আহবান জানান।