শিশুদের বেড়ে ওঠার জন্য অপরিহার্য এই ৬ সবজিঃ-

88

বেড়ে ওঠার সময়ে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়াটা যেমন শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য জরুরী তেমনি তা শিশুর খাদ্যভ্যাস ঠিক করতেও দরকারি। পুষ্টিকর খাবারের প্রয়োজনীয়তা শেখানোর সময় এটাই। বাচ্চার বেড়ে ওঠার জন্য খুব জরুরী একটি উপাদান হলো প্রোটিন বা আমিষ। এই পুষ্টি উপাদানটি শিশুর বৃদ্ধি ও ক্ষয়পূরণে সাহায্য করে, হাড় শক্তিশালী করে এবং মস্তিষ্ক সুস্থ রাখে। দৈনিক ক্যালোরির ১০-২০ শতাংশই আসা উচিত প্রোটিন থেকে।

প্রোটিন মানে যে শুধু মাছ-মাংস-ডিম, তা কিন্তু নয়। টাটকা শাক-সবজি খাওয়ার মাধ্যমেও শিশুরা প্রোটিন পায়। আর প্রোটিনের পাশাপাশি পায় প্রচুর খাদ্য আঁশ, ভিটামিন ও খনিজ। জেনে নিন কী কী সবজি খেলে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন পাবে আপনার শিশু।

১) ব্রকোলি

শিশুরা সাধারণত সবুজ শাক-সবজি খেতে পছন্দ করে না। কিন্তু ব্রকোলি বিভিন্ন উপায়ে রান্না করা যায় বলে সহজেই ভুলিয়ে ভালিয়ে তা শিশুকে খাওয়াতে পারে। তৈরি করতে পারেন ব্রকোলির পরোটা, কাটলেট এমনকি চিপস।

২) মটরশুঁটি

মটরশুঁটি শুধু সুস্বাদুই নয়, স্বাস্থ্যকরও বটে। এক কাপ মটরশুঁটিতে আট গ্রামেরও বেশি প্রোটিন থাকে। তরকারিতে মটরশুটি দিলে শিশুরা খুব শখ করে খায়। আর তা সেদ্ধ করে নিলে সদ্য শক্ত খাবার খাওয়া শিখছে এমন শিশুরাও হাত দিয়ে নাড়াচাড়া করে, মজা করে খেতে পারে।

৩) ঢেঁড়স

এক কাপ ঢেঁড়সে রয়েছে দুই গ্রাম প্রোটিন। ঢেঁড়স দিয়ে তরকারি রান্না করলে তা পিচ্ছিল হবার কারণে শিশুরা খেতে চায় না। এক্ষেত্রে তাকে ঢেঁড়স মুচমুচে করে ভেজে দিতে পারেন।

৪) মাশরুম

এক কাপ মাশরুমে রয়েছে তিন গ্রামেরও বেশি প্রোটিন। এছাড়া এতে প্রচুর ভিটামিন ও মিনারেলও থাকে। মাশরুম কুচি করে তা শিশুর স্যান্ডউইচে দিয়ে দিতে পারেন।

৫) আলু

আলু সবারই প্রিয় খাবার। এতে প্রোটিনও থাকে বেশ কিছুটা। মাঝারী আকারের একটি আলুতে পাঁচ গ্রামের মতো প্রোটিন থাকে। তবে ফ্রাই করে নয়, বেক করে বা সেদ্ধ করে খাওয়ান শিশুদেরকে।

৬) সুইট কর্ন

সুইট কর্নের মিষ্টি স্বাদের জন্য শিশুরা এই খাবারটি বেশ আগ্রহ নিয়ে খায়। একটি সুইট কর্নে পাঁচ গ্রামেরও বেশি প্রোটিন থাকে। তা ব্যবহার করতে পারেন স্যান্ডউইচ, পাস্তা, ইনস্ট্যান্ট নুডলস তৈরি করতে।