মৌলভীবাজার স্থাপিত হল বঙ্গবন্ধু কর্ণার

465

মৌলভীবাজার টোয়েন্টিফোর ডট কম:: বঙ্গবন্ধুর প্রতি আপমর জনতার ভালোবাসা নেই এমন ভাবনা দুরহ। বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভালবাসায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন করছেন অগ্রণী ব্যাংকের সাবেক মহা-ব্যবস্থাপক ও বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামস্-উল ইসলাম। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা, কৃতজ্ঞতা ও ভালবাসা থেকেই শামস্-উল ইসলাম ব্যাংক থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্থাপন করছেন ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’।
শামস্-উল ইসলাম সর্বপ্রথম ২০১০ সালে অগ্রণী ব্যাংক মৌলভীবাজার এজিএম শাখায় স্থাপন করেন ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’। ব্যাংক কর্মকর্তা শামস্-উল ইসলাম পর্যায়ক্রমে ২০১৬ ইং সালে আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক ও বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিজ দায়িত্বে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ স্থাপন করেন।
অগ্রণী ব্যাংক মৌলভীবাজার আঞ্চলিক এজিএম শাখার সহকারি ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিশ্বজিৎ দাশ জানান অগ্রণী ব্যাংক মৌলভীবাজার আঞ্চলিক এজিএম শাখায় সর্বপ্রথম থেকে নিজ উদ্যোগে ২০১০ সালে বর্তমান মহা-ব্যবস্থাপক শামস্-উল ইসলাম ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ স্থাপন করেন। ২০১৮ সালের শেষের দিকে মৌলভীবাজার আঞ্চলিক শাখা পরিদর্শনে শামস্-উল ইসলাম বলেছেন অগ্রণী ব্যাংক মৌলভীবাজার এজিএম শাখাসহ পর্যায়ক্রমে স্থাপত্য নকশা (আর্কিটেকচারাল ডিজাইনে) ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ স্থাপন করা হবে।

এছাড়াও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও কর্মময় জীবনের ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিক ভাবে তুলে ধরার জন্য ব্যাংক, স্কুল-কলেজ সরকারি বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন করেন শামস্-উল ইসলাম।
শামস্-উল ইসলাম এই উদ্ভাবনী ভাবনার ধারাবাহিকতায় ব্যাংকটির প্রধান কার্যালয়ের সপ্তম তলায় বঙ্গবন্ধু ‘কর্ণার স্থাপন’ করেন। বঙ্গবন্ধু কর্ণারে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত দেশ-বিদেশের বিভিন্ন বই-পুস্তক, ছবি, লেখা ও প্রামাণ্যচিত্র রাখা হয়েছে। এর মাধ্যমে যেনো জাতির নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানতে পাড়ে।
শামস্-উল ইসলামের বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সম্পূর্ণ নতুন এক আবিষ্কার ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’। যা আজ দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত হচ্ছে। বর্তমানে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। তিনি মনে করেন, তাঁর এই সৃষ্টি অচিরেই সারাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাবে, যার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু এবং তাঁর আদর্শ আগামী প্রজন্মের কাছে আরও বেশি বেশি পরিচিতি লাভ করবে।

মোহাম্মদ শামস্-উল ইসলাম ২০১৬ সালের ২৮ আগস্ট অগ্রণী ব্যাংক লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও হিসেবে যোগদান করেন। এর আগে তিনি আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। এছাড়া তিনি ২০০৮ সাল থেকে অগ্রণী ব্যাংকে মহা-ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করেন এবং একই ব্যাংকে উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্বও পালন করেন। তিনি দীর্ঘ সাত বছর অগ্রণী এক্সচেঞ্জ হাউস প্রাঃ লিঃ, সিঙ্গাপুরের সিইও এবং পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং রেমিটেন্স আহরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। শামস্-উল ইসলাম ১৯৮৪ সালে অগ্রণী ব্যাংকে সিনিয়র ফিন্যান্সিয়াল অফিসার হিসেবে যোগদান করেন।
তিনি ১৯৮১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান বিভাগ থেকে সম্মানসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি যুক্তরাজ্য, হল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশে ব্যাংকিং ও ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত উচ্চতর প্রশিক্ষণ ও সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন। তিনি ব্যাংকের বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব ছাড়াও বিভিন্ন শাখা, অঞ্চল এবং কর্পোরেট শাখা প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
মোহাম্মদ শামস্-উল ইসলাম জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কিছু একটা করার ইচ্ছা তাঁর বহু দিনের স্বপ্ন ছিল। যা এখন বাস্তবে রূপ নিয়েছে। তার সেই সুপ্ত প্রয়াস থেকেই সৃষ্টি হয় ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’। প্রকৃত অর্থে বঙ্গবন্ধুকে সাধারণ মানুষের কাছে আরও বেশি পৌছে দেয়ার চিন্তা থেকে নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধু সম্বন্ধে আরও তথ্য দিতে এবং মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির কাছে নির্ভুল ইতিহাস তুলে ধরতে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ করার স্বপ্ন দেখেন তিনি। বঙ্গবন্ধু কর্ণারে এখানে জাতির পিতাকে নিয়ে অন্তত ৪শ’ বই রয়েছে, যেগুলো বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মসহ দেশের সুস্পষ্ট ইতিহাস পাঠককে তথ্য দিতে যেন অপেক্ষা করছে। রয়েছে বঙ্গবন্ধু সংশ্লিষ্ট তিনটি ছবির এ্যালবাম। সেখানে পাওয়া যায় বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিময় অনেক ছবি। রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ছবি সংকলিত ৫ ও ১০ টাকার দুটি বড় নোট। এই কর্নারের সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয়টি হলো ১১৭ কেজি ওজনের বঙ্গবন্ধুর ব্রোঞ্জের আবক্ষ ভাস্কর্য।
শামস্-উল ইসলামের এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে প্রশংসা জ্ঞাপন করেন বঙ্গবন্ধু কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী অভিনন্দন জানিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশের পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছেন।

উল্লেখ্য যে, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর এখন পর্যন্ত দেশ-বিদেশে প্রায় ১৩ শতাধিক মৌলিক গ্রন্থ রয়েছে। এইগুলো বাংলা ও ইংরেজী ভাষায় প্রকাশিত। এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর ওপর বেশ কিছুসংখ্যক বই চীনা, জাপানী, ইতালি, জার্মানি ও সুইডিশসহ কয়েকটি বিদেশী ভাষায় প্রকাশিত হয়েছে। বর্তমানে শামস্-উল ইসলাম মহোদয় ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।